OrdinaryITPostAd

ঈদুল আযহা ২০২৪ কত তারিখ বাংলাদেশে - কোরবানি করার নিয়ম

 

ঈদুল আযহা ২০২৪ কত তারিখে বাংলাদেশে - কোরবানি করার নিয়ম 

ঈদুল আযহা ২০২৪ কত তারিখে বাংলাদেশে? আমরা অনেকে জানিনা যে ঈদুল আযহা কত তারিখে? ধর্মপাণ মুসলিমদের বছরে দুটি ঈদ হয়ে থাকে একটি ঈদুল ফিতর অন্যটি ঈদুল আযহা। ঈদুল ফিতর ইতিমধ্যে সংঘটিত হয়ে গেছে কিন্তু ঈদুল আযহা সামনে আসন্ন। এজন্য আমাদের মুসলিমদের সকলের জানা উচিত ঈদুল আযহা কত তারিখে পালিত হবে । এই পৃথিবীর সকল দেশে একসাথে একই দিনে পালিত হয় না। ভিন্ন ভিন্ন দিনে অনুষ্ঠিত হয়ে থাকে।

আপনি যদি বাংলাদেশে বসবাসরত হয়ে থাকেন এবং যদি জানতে চান ঈদুল আযহা ২০২৪ সালের কত তারিখে। তাহলে আজকের আমাদের এই আর্টিকেলটি আপনার জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ। উক্ত আর্টিকেলটি পড়ে ঈদুল আযহা সম্পর্কে বিস্তারিত জানুন।

ঈদুল আযহা ২০২৪ কত তারিখে বাংলাদেশে

ঈদুল আযহা ২০২৪ কত তারিখে বাংলাদেশে? আপনি যদি ঈদুল আযহা সম্পর্কে জানার জন্যই আর্টিকেলটি ওপেন করে থাকেন তাহলে আপনি সঠিক জায়গাতে এসেছেন। আমাদের মুসলিমদের জন্য ঈদুল আযহা একটি গুরুত্বপূর্ণ ঈদ এবং এর তাৎপর্য অনেক। এটা শুধু ঈদ নয় এটা আল্লাহর একটা ইবাদত। তাই আমাদের সকল মুসলিমদের জানা উচিত কবে ঈদ উল আযহা পালিত হবে। না জানতে পারলে আমরা ইবাদত থেকে বঞ্চিত হয়ে পড়তে পারি তাই আমাদের জানাটা একান্তই জরুরী।

আরো পড়ুনঃ উইন্ডোজ 11 টাস্কবারে আবহাওয়া উইজেট কীভাবে নিষ্ক্রিয় করবেন জানুন

বাংলাদেশে ঈদুল আযহা ২০২৪ সালে কবে অনুষ্ঠিত হবে? তা আমরা আপনাকে এই পোস্টের মাধ্যমে জানার চেষ্টা করব। ঈদের দিন বা তারিখ মূলত ঠিক করা হয় চাঁদ দেখার উপর নির্ভর করে। চাঁদ দেখার মাধ্যমে নতুন মাসের শুরু হয় এবং শেষ হয়। চাঁদ দেখার মাধ্যমে ঈদুল ফিতর ঈদুল আযহা ঈদ পালিত হয়। 
আরবি ক্যালেন্ডার অনুযায়ী জিলহজ মাসের ১০ তারিখে ঈদুল আযহা অনুষ্ঠিত হয়ে থাকে। সেই অনুযায়ী প্রত্যেকটা দেশে ঈদ পালিত হয়। বাংলাদেশের এবার ২০২৪ সালে সালের জুন মাসের ১৭ তারিখ জিলহজ মাসের ১০ তারিখ হয় আর এই দিনে পবিত্র ঈদুল আযহা পালিত হবে।

২০২৪ সালে কোরবানি ঈদ কত তারিখ

২০২৪ সালে কোরবানি ঈদ কত তারিখ? কোরবানি করা এক একটি গুরুত্বপূর্ণ ইবাদত। এর উদ্দেশ্য হচ্ছে মহান আল্লাহতালার সন্তুষ্ট অর্জনের জন্য পশু কোরবানি করা। আপনি যদি কোরবানি দিতে চান এবং আল্লাহ সন্তুষ্টি অর্জন করতে চান তাহলে অবশ্যই আপনাকে কুরবানী ঈদ কত তারিখে জানতে হবে। কারণ ঈদের দিনের আগে থেকেই পশু নির্বাচন ও ক্রয় করতে হয়। তাই আগাম প্রস্তুতির জন্য কোরবানির তারিখটা জেনে রাখা খুবই গুরুত্বপূর্ণ।
হিজরী মাস কবে শুরু হবে আমরা ইতিমধ্যেই আলোচনা করেছি যে এ বিষয়টি সম্পূর্ণ চাঁদ দেখার উপর নির্ভর করে। তবে কুরবানী ঈদ জিলহজ্জ মাসের ১০ তারিখে উদযাপন বা পালিত হয়ে থাকে। ইংরেজি ক্যালেন্ডার অনুযায়ী যেদিন জিলহজ মাসের ১০ তারিখ হবে আর সেই দিনেই উদযাপন করতে হবে কোরবানির ঈদ। আবহাওয়া অধিদপ্তর জানিয়েছে জিলহজ মাসের ১০ বাংলাদেশে তারিখ জুন মাসের ১৭ তারিখ। তাই বাংলাদেশে কোরবানির ঈদ জুন মাসের ১৭ তারিখ অনুষ্ঠিত হবে। 

সৌদি আরবে কোরবানি ঈদ কত তারিখ

বাংলাদেশে ঈদুল আযহা ২০২৪ কত তারিখ? উক্ত বিষয়টি সম্পর্কে ইতিমধ্যে আলোচনা করা হয়েছে। আপনি যদি বাংলাদেশের নাগরিক বা বাঙালি হয়ে থাকেন কিন্তু আপনি সৌদি আরবে বসবাস করেন। সেই জন্য ঈদুল আযহা  কবে পালিত হবে সে বিষয় সম্পর্কে জানা প্রয়োজন। কারণ ভৌগলিক অবস্থার কারণে এক দেশ থেকে অন্য দেশের সময়ের তারতম দেখা দেয় ফলে এক এক দেশে এক এক সময় হয়ে থাকে। বাংলাদেশ ও সৌদি আরবে সময়টা একদিন কম বেশি।

আরো পড়ুনঃ বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার মোবাইল নম্বর ও ইমেইল জেনে নিন

বাংলাদেশে ১৭ তারিখের হয়ে থাকলে সৌদি আরবে ঠিক তারা একদিন আগে কোরবানি ঈদুল আযহা পালিত হয়। তাহলে এবার সৌদি আরবে জিলহজ মাসের ১০ তারিখ ইংরেজি ক্যালেন্ডার অনুযায়ী জুন মাসের ১৬ তারিখ। আর এই দিনে পবিত্র ঈদুল আযহা পালিত হয়ে হবে। শুধু যে এবারে ঈদ একদিন আগে পিছে হচ্ছে তা নয়। এটা মূলত ভৌগোলিক অবস্থার কারণে অনেক আগে থেকেই হয়ে আসছে। 
২০২৪ সালে পবিত্র ঈদুল ফিতর অনুষ্ঠিত হয় সৌদি আরবে এপ্রিল মাসের ১০ তারিখ। এবং বাংলাদেশে অনুষ্ঠিত হয় ঈদুল ফিতর এপ্রিল মাসের ঠিক ১০ তারিখে। এখান থেকে আমরা বুঝতে পারি বাংলাদেশের সৌদি আরবে একই দিনে এই পালিত হয় না। ভিন্ন ভিন্ন দিনে পালিত হয়ে থাকে। ঈদ মূলত চাঁদ দেখার উপর নির্ভরশীল তাই চাঁদ দেখার উপর নির্ভর করেই পৃথিবীর সকল দেশে ঈদুল ফিতর ও ঈদুল আযহা পালিত হয়। 

কয়দিন পশু কোরবানি দেওয়া যায়

পশু কোরবানি কয়দিন দেওয়া যায়? আমরা অনেকেই এই বিষয়টি জানিনা বা অবগত নয়। আমরা অনেকেই মনে করে থাকি যে শুধু কোরবানির ঈদের দিন পশু কোরবানি করা যায় এটা আমাদের ভুল ধারণা। আপনি যদি একজন মুসলিম হয়ে থাকেন তাহলে অবশ্যই এই সম্পর্কে বিস্তারিত জানা প্রয়োজন। তাহলে পারে আপনি সঠিক ভাবে জানতে পারবেন যে কোন কোন দিন পশু কোরবানি করা যায়। আসুন আমরা এই সম্পর্কে বিস্তারিত জানি।
অনেক সময়  বিভিন্ন কারণে আমরা কোরবানির ঈদের দিনে পশু কুরবানী করতে পারি না। এতে কোন সমস্যা নেই। আপনি যদি কোন কারণবশত কোরবানির ঈদের দিন পশু কুরবানী করতে না পারেন তাহলে পরের দুই দিন কুরবানী করতে পারবেন। এটা ইসলামের বিধান রয়েছে যে জিলহজ মাসের ১০, ১১ এবং ১২ তারিখ পর্যন্ত কোরবানি করা যায়। আর এটা ইসলামের শরীয়তের মধ্যে ভালো করে বলা আছে। 

কোন দিন পশু কোরবানি করা উত্তম

সব থেকে উত্তম হচ্ছে কোরবানি ঈদের দিন পশু কোরবানি করা অর্থাৎ জিলহজ মাসের ১০ তারিখ এ। আপনি যদি কোন কারণবশত মুসাফির অবস্থায় বা কোনো পরিস্থিতির শিকার হয়ে ঈদের দিন ওষুধ কোরবানি করতে যদি না পারেন তাহলে পরে অর্থাৎ জিলহজ মাসের ১১ ও ১২ তারিখ পশু কোরবানি করতে পারেন।
কোরবানি ঈদের পরবর্তী দুইদিন এর মধ্যে পশু কোরবানি করলে কোন সমস্যা হবে না ইসলামের শরীয়ত অনুযায়ী। কিন্তু এরপরে যদি আপনি জিলহজ মাসের ১৩ তারিখে পশু কোরবানি করেন তাহলে এটা পশু কোরবানির গ্রহণযোগ্যতা পাবে না। তাই আমাদের সকলের উচিত কোরবানি ঈদের দিন পশু কোরবানি করা এবং এটাই সর্বোত্তম।

পশু কোরবানি করার নিয়ম


ঈদুল আযহা ২০২৪ কত তারিখে বাংলাদেশে এই বিষয়টি সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা করা হয়েছে। ইতিমধ্যে আমরা জেনেছি যে জুন মাসের ১৭ তারিখ কোরবানির ঈদ উদযাপন করা হবে। আর এই দিনে আমাদেরকে পশু কোরবানি করতে হবে। কোরবানির পশু জবাই করার বেশ সুনির্দিষ্ট কিছু নিয়ম কানুন রয়েছে। আপনি যদি চান মহান আল্লাহতালা আপনার কোরবানিকে কবুল করুক তাহলে আপনাকে অবশ্যই পশু জবাইয়ের নিয়ম কানুন জানতে হবে।

কোরবানির পশু জবাই করতে হয় কিবলামুখী করে আর বাংলাদেশে কিবলা হচ্ছে পশ্চিম দিকে। সুতরাং কোরবানির আগে পশুকে পশ্চিম দিকে শুইয়ে দিতে হবে জবাই করার আগে। আর কিবলামুখী করে পশুকে শুয়ে কোরবানি করা উত্তম। পশু শোয়ানোর পরে ভালোভাবে তার পা গুলো বেঁধে নিতে হবে যেন জবাই করার সময় পা গুলো নড়াচড়া না করে। অবশ্যই আমাদেরকে বিষয়টি বিশেষভাবে নজর রাখতে হবে।
আপনি যদি উট কোরবানি দিতে চান তাহলে আপনাকে নাহর করতে হবে। নাহর বিষয়টি হচ্ছে উট দাঁড়ানো অবস্থায় বুক থেকে ঘার পর্যন্ত চলে যা প্রধান রক্ত বাহি রগ কেটে দেওয়া হয় যার ফলে অতিরিক্ত রক্তক্ষরণের কারণে ধীরে ধীরে উট নিস্তেজ হয়ে মাটিতে ঢলে পড়ে এবং একসময় তার মৃত্যু নিশ্চিত হয়। আপনি যদি উটকে শুইয়ে জবাই করতে পারেন তাহলে করতে পারেন।

কিবলামুখী করে শুইয়ে দিতে হবে। যেহেতু বাংলাদেশের কেবলা পশ্চিম দিকে তাই পশ্চিম দিকে মুখ করে পশুকে শোয়াতে হবে। সাধারণত এভাবে কোরবানির পশুকে শোয়ানো সব থেকে উত্তম। পশুকে শোয়ানোর পরে ভালোভাবে তার পা গুলোকে বেঁধে নিতে হবে যেন কোরবানি করার সময় পা হল নড়াচড়া করতে না পারে। এই বিষয়গুলো বিশেষ করে নজর রাখতে হবে।

আমাদের শেষ কথা

ঈদুল আযহা ২০২৪ কত তারিখে বাংলাদেশে নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা করা হয়েছে। আপনি যদি একজন সচেতন মুসলিম হয়ে থাকেন তাহলে আপনার অবশ্যই আগে থেকে এ বিষয়গুলো সম্পর্কে জেনে রাখা উচিত। কারণ ঈদ কত তারিখ হবে এ বিষয়টি যদি জানা থাকে তাহলে খুব সহজেই আমরা ঈদের প্রস্তুতি গ্রহণ করতে পারব এবং পশু কিনে রাখতে পারব।

এতক্ষণ আমাদের সঙ্গে থাকার জন্য অসংখ্য ধন্যবাদ। এই ধরনের গুরুত্বপূর্ণ এবং তথ্যমূলক আর্টিকেল যদি নিয়মিত পড়তে চান তাহলে আমাদের ওয়েবসাইট ভিজিট করতে থাকুন। কারণ আমরা আমাদের ওয়েবসাইটে নিয়মিত এ ধরনের আর্টিকেল প্রকাশ করে থাকি।

এই পোস্টটি পরিচিতদের সাথে শেয়ার করুন

পরবর্তী পোস্ট দেখুন
এই পোস্টে এখনো কেউ মন্তব্য করে নি
মন্তব্য করতে এখানে ক্লিক করুন

অর্ডিনারি আইটির নীতিমালা মেনে কমেন্ট করুন। প্রতিটি কমেন্ট রিভিউ করা হয়।

comment url